u1f9ou7o-290x173
ফেনী সদর উপজেলায় তিন স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করেছে ছাত্রলীগ নেতারা। পরে সরকার দলীয় শীর্ষ নেতাদের চাপের মুখে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে তাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়।

অপহৃতরা হলেন, কালিদহ ইউনিয়নের গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী।

এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানায়, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে তিন স্কুলছাত্রী ক্লাস শেষে বাড়ি ফিরছিল। তারা ফেনী-সোনাগাজী সড়ক সংলগ্ন দক্ষিণ গোবিন্দপুর কলঘর নামক স্থানে পৌঁছলে পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা জেলা ছাত্রলীগের ক্রীড়া সম্পাদক শাহাদাত হোসেন শামীম, কালিদহ ইউনিয়ন সহ-সভাপতি মো. সৈকত ও ধলিয়া ইউনিয়নের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক তাওহীদুল ইসলাম তাদেরকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নেয়।

পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাদের সন্ধান পাওয়া যায়নি। ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে ক্ষোভ ও অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। পরে দুপুরে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ অপহরণকারী ও অপহৃতাদের অভিভাবকদের নিয়ে জরুরি সভা আহ্বান করে। ওই সভায় বিদ্যালয়ের সভাপতি ও জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক শহীদ খোন্দকার, সদস্য ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক মীর হোসেনসহ সদস্য ও শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। প্রায় ৪ ঘণ্টা পর চাপের মুখে পড়ে তাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেয় অপহরণকারীরা।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি শহীদ খোন্দকার অপহরণের বিষয়টি অস্বীকার করে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, প্রেম ঘটিত কারণে তারা ঘুরতে বেরিয়েছে। এ ঘটনায় ওই তিন ছাত্রীর অভিভাবকদের কাছ থেকে মুচলেকা নেয়া হয়েছে।

তাহসিনা সুলতানাপ্রথম পাতা
ফেনী সদর উপজেলায় তিন স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করেছে ছাত্রলীগ নেতারা। পরে সরকার দলীয় শীর্ষ নেতাদের চাপের মুখে বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে তাদের বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়। অপহৃতরা হলেন, কালিদহ ইউনিয়নের গোবিন্দপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানায়, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে তিন স্কুলছাত্রী ক্লাস শেষে...