117247-Home_thereport24-300x209
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে দারুণ খেলেছিল বাংলাদেশ। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে আগের আট টেস্টের সাতটিতে ইনিংস পরাজয়সহ হারের পর বৃষ্টি বিঘ্নিত প্রথম টেস্ট ড্র হয়েছিল। আগামী ৩০ জুলাই মিরপুরে শুরু হতে যাওয়া দ্বিতীয় টেস্ট নিয়ে তাই আত্মবিশ্বাসী ইমরুল কায়েস। মিরপুরে বৃষ্টি বাগড়া না দিলে ভালো কিছুর প্রত্যাশাই করছেন তিনি।

সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে দারুণ ছিল বাংলাদেশের পারফরম্যান্স। আগের যে কোনো টেস্টের চেয়ে দক্ষিণ আফ্রিকানদের বিপক্ষে এবারে ভালো অবস্থানে ছিল টাইগাররা; জয়ের সম্ভবনাও জেগেছিল। তবে বৃষ্টির কারণে ম্যাচের চতুর্থ ও পঞ্চম দিনের খেলা ভেসে যাওয়ায় শেষ পর্যন্ত ড্র মেনে নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয়েছে দুদলকে। মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হবে দুদলের মধ্যকার সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট। এই ম্যাচেও ভর করেছে বৃষ্টির আশঙ্কা। যা ক্রিকেটারদের জন্য হতাশারই বিষয়। তবে ম্যাচ ঠিকঠাক মতো মাঠে গড়ালে ঢাকা টেস্টেও ভালো কিছু করার আত্মবিশ্বাস বিরাজ করছে বাংলাদেশ দলে। দলের আত্মবিশ্বাসের কথাটাই জানিয়েছেন টেস্টে তামিম ইকবালের সঙ্গী উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েস। সিরিজের দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচটি সামনে রেখে গতকাল সোমবার অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল। বৃষ্টিভেজা আবহাওয়ার কারণে অনুশীলন হয়েছে ইনডোরে। সেখানেই মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলেছেন ইমরুল কায়েস। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইতিবাচক ক্রিকেট খেলার কথা বলে তিনি বলেন, আমরা দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইতিবাচক ক্রিকেট খেলতে পেরেছি। যা অন্য দলগুলোর বিপক্ষে প্রেরণা হিসেবে কাজে লাগবে। বৃষ্টির ওপর তো আর কারো হাত নেই। ঢাকা টেস্টেও চট্টগ্রামের মতো ইতিবাচক মনোভাব থাকবে আমাদের। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দলের আগের পারফরম্যান্স ইমরুলের অজানা নয়। বিশ্বের এক নম্বর টেস্ট দলের বিপক্ষে তাই ড্রটাও অনেক বড় অর্জন মনে করছেন তিনি। তাদের (দক্ষিণ আফ্রিকা) বিপক্ষে ড্র করতে পারাটাই আমাদের জন্য বড় অর্জন। চট্টগ্রাম টেস্টে ব্যাটিং-বোলিং ফিল্ডিংয়ে আমরা ইতিবাচক ক্রিকেট খেলেছি। দুর্ভাগ্যবশত বৃষ্টি হয়েছে। তার পরও আমরা এগিয়ে ছিলাম।

আমরা যদি এই আত্মবিশ্বাস ধরে রেখে নিজেদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলতে পারি; ঢাকা টেস্টেও আগের মতোই এগুতে পারব। দক্ষিণ আফ্রিকা বর্তমানে টেস্ট ক্রিকেটের এক নম্বর দল। চট্টগ্রামের তুলনায় ঢাকা টেস্টে তারা আরো বেশি আক্রমণাত্মক ক্রিকেট খেলবে বলেই অনুমান ইমরুলের। ওরা ওয়ানডে সিরিজ হারার পর থেকেই জয়ের জন্য ক্ষুধার্ত। তারা অবশ্যই চাইবে জয় (ঢাকা টেস্ট জিতে) দিয়েই সিরিজ শেষ করতে। বিশ্বের এক নম্বর দলের সঙ্গে আমরা খেলছি। ওরা বাজে বল খুব কমই করে, ভালো জায়গায় বল করে। চট্টগ্রামের উইকেট একটু ভিন্ন ছিল। ওখানে উইকেটে থাকা সম্ভব হলেও শর্ট খেলা কঠিন ছিল।

ডেল স্টেইন-মরনে মরকেল-ভার্নন ফিল্যান্ডারদের নিয়ে গড়া বিধ্বংসী ফাস্ট বোলিং জুটির বিপক্ষে ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজের পরিকল্পনার কথা বলেন ইমরুল। উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান হিসেবে চেষ্টা করি যতক্ষণ সম্ভব উইকেটে থাকার। আমরা বেশিক্ষণ উইকেটে থাকতে পারলে পরের ব্যাটসম্যানদের জন্য খেলা সহজ হয়ে যায়। আবহাওয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী ঢাকা টেস্টেও বৃষ্টির শঙ্কা রয়েছে। এই নিয়ে বেশ চিন্তিত ইমরুল। যেহেতু এই টেস্টেও বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে তাই রেজাল্ট পরের ব্যাপার। ওদের সঙ্গে ভালো করলে অন্য দলগুলোর বিপক্ষে তা কাজে দেবে। ব্যাটসম্যানদের ভালো খেলার বিষয়ে কোচের ভূমিকার প্রশংসা করেছেন ইমরুল কায়েস। তিনি বলেছেন, কোচ আমাদের অনেক উৎসাহ দেন; নিজেদের স্বাভাবিক খেলা চালিয়ে যাওয়ার জন্য। শর্ট খেলার ব্যাপারে তার কোনো বাধা নেই। এটা আমার কাছে খুব ভালো লাগে।

অর্ণব ভট্টখেলাধুলা
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে চট্টগ্রাম টেস্টে দারুণ খেলেছিল বাংলাদেশ। প্রোটিয়াদের বিপক্ষে আগের আট টেস্টের সাতটিতে ইনিংস পরাজয়সহ হারের পর বৃষ্টি বিঘ্নিত প্রথম টেস্ট ড্র হয়েছিল। আগামী ৩০ জুলাই মিরপুরে শুরু হতে যাওয়া দ্বিতীয় টেস্ট নিয়ে তাই আত্মবিশ্বাসী ইমরুল কায়েস। মিরপুরে বৃষ্টি বাগড়া না দিলে ভালো কিছুর প্রত্যাশাই করছেন তিনি। সফরকারী দক্ষিণ...