1439798449
রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলেই সাধারণত ডায়াবেটিস হয়। এটি এমন একটি রোগ, যার প্রভাব থেকে আমাদের শরীরের কোনো অংশই বাদ যায় না। আর আমাদের শরীরের সবচেয়ে বড় অঙ্গই হচ্ছে ত্বক। ডায়াবেটিসে ত্বক অনেক শুষ্ক হয়ে যায়। তাই এ সময় ত্বকের বাড়তি যত্ন নেওয়া অনেক বেশি জরুরী। এ সময় কেবল খাদ্যাভাসের মাধ্যমেই ত্বকের সঠিক যত্ন নেওয়া সম্ভব নয়। কিংবা সাবান ও শ্যাম্পু মেখে গোসলও এর একমাত্র প্রতিরোধের উপায় নয়। বরং ডায়াবেটিসে এমন কিছু কাজ করুন যাতে ত্বকের মরা চামড়াগুলো দূর হয়ে ত্বক হয়ে উঠে আরও মসৃণ। সেইসঙ্গে ত্বকের আর্দ্রতা ফিরে আসে।

জেনে নিন ডায়াবেটিসে শুষ্ক ত্বকের যত্নে যা করবেন-

স্বাস্থ্যকর খাবার
ডায়েটে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যুক্ত স্বাস্থ্যকর খাবার রাখার চেষ্টা করুন। এর সমৃদ্ধ উৎস হলো- তিসি বীজ, তিসি বীজের তেল, স্যামন মাছ, আখরোট, পুদিনা , শাকসবজি প্রভৃতি। নিয়মিত এই খাবারগুলো খেলে ত্বকের শুষ্কতা সহজেই কমবে।

লোশন ব্যবহার
ডায়াবেটিসে ত্বকে আর্দ্রতা আনতে গোসল করুন। গোসলের পর পরই লোশন ব্যবহার করলে ভালো হয়। চাইলে ভ্যাসলিনও ব্যবহার করতে পারেন।

অলিভ অয়েল
শুষ্ক ত্বককে মসৃণ এবং আর্দ্র করতে অলিভ অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিন গোসলের কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে দেহের শুষ্ক জায়গাগুলোতে এ তেল ম্যাসাজ করুন। চাইলে আর্দ্রতা আনতে বাদাম তেলও ব্যবহার করতে পারেন।

দুধের ব্যবহার
দুধে অ্যান্টিফ্যামেটরি বৈশিষ্ট্য এবং ল্যাকটিক অ্যাসিড রয়েছে যা মরা কোষগুলোকে দূর করে ত্বকের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। ঠাণ্ডা দুধে কাপড় ভিজিয়ে ত্বকের শুষ্ক জায়গায় পাঁচ-সাত মিনিট রাখুন। এবার হালকা গরম পানিতে ভেজানো কাপড় দিয়ে শুষ্ক জায়গাটি যত্নের সঙ্গে মুছে ফেলুন। এতেও ত্বকের আর্দ্রতা ফিরে আসবে।

দুধ, গোলাপজল ও লেবুর রসের মিশ্রণ
চার টেবিলচামচ দুধে কয়েক ফোটা গোলাপজল এবং লেবুর রস ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। এবার মিশ্রণটি ত্বকে লাগিয়ে ১০ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন দিনে দুইবার করে শুষ্ক ত্বকে মিশ্রণটি লাগালে ত্বকের আর্দ্রতা চলে আসবে।

বাদাম/নারকেল তেল
ডায়াবেটিসে ত্বকের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে বাদাম কিংবা নারকেল তেল দুটোই সমান উপকারী। প্রতিদিন ঘুমাতে যাওয়ার আগে তেল সামান্য গরম করে ত্বকে ভালোভাবে লাগিয়ে নিন। পরদিন সকালে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে তা সুন্দরভাবে পরিষ্কার করুন। এতেও ত্বকের আর্দ্রতা ফিরে আসবে।

অ্যাভাকাডো
ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে ভূমিকা রাখে অ্যাভাকাডো। প্রথমে এর পেস্ট তৈরি করে শুষ্ক ত্বকের উপর লাগিয়ে নিন। এর ১৫ মিনিট পর পরিষ্কার ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভালোভাবে পরিষ্কার করুন। নিয়মিত ব্যবহারে পরিবর্তনটা নিজেই টের পারেন।

স্বল্প সময়ের গোসল
ডায়াবেটিসের রোগীদের প্রোটিন সমৃদ্ধ ওটমিল মিশ্রিত পানি দিয়ে বেশি সময় ধরে গোসল না করে সর্ট বাথ করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। এ কাজটি নিয়মিত করলে ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখা সহজ হবে। সপ্তাহে অন্তত একবার হালকা গরম পানিতে ওটমির ঢেলে দিন। চাইলে এর মধ্যে আপনার পছন্দ মতো কয়েক ফোটা তেলও দিতে পারেন। এবার ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর এই পানি দিয়ে গোসল সেরে ফেলুন। এতেও ত্বক আর্দ্র থাকবে।

দুধ পান
প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এক চা চামচ বাদামের তেল মিশ্রিত হালকা গরম এক গ্লাস দুধ পান করুন। নিয়মিত এই দুধ পান করলে ভেতর থেকেই ত্বকের শুষ্ক ভাব দূর হবে। সেই সঙ্গে ত্বকের আর্দ্রতাও ফিরে আসবে।

তথ্যসূত্র: ইনফরমেশন অ্যাবাউট ডায়াবেটিস

অর্ণব ভট্টস্বাস্থ্য কথা
রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে গেলেই সাধারণত ডায়াবেটিস হয়। এটি এমন একটি রোগ, যার প্রভাব থেকে আমাদের শরীরের কোনো অংশই বাদ যায় না। আর আমাদের শরীরের সবচেয়ে বড় অঙ্গই হচ্ছে ত্বক। ডায়াবেটিসে ত্বক অনেক শুষ্ক হয়ে যায়। তাই এ সময় ত্বকের বাড়তি যত্ন নেওয়া অনেক বেশি জরুরী। এ সময় কেবল...