94074_images
প্রায় ৯ বছর পর অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশে টেস্ট সিরিজ খেলতে আসার কথা ছিল ২৭শে সেপ্টেম্বর। কিন্তু নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে দলটি তাদের আসার সময় পরিবর্তন করেছে এর মধ্যেই। এদিকে বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের কোন ঝুঁকি আছে বলে মনে করেননা ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি শনিবার মুঠোফোনে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, রোববার বাংলাদেশ সফরে আসছেন আস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ডের একজন নিরাপত্তা প্রতিনিধি। দুপুরে তার সঙ্গে এই বিষয় নিয়ে আলোচনায় বসতে চায় নিরপত্তা প্রতিনিধি। তিনি ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, আমরা গতকাল রাতে বিষয়টি প্রথম জানি। এর পর আমাদের সঙ্গে কথাও হয়েছে বেশ কয়েক বার। আমি যতটা জানি আমাদের দেশের নিরাপত্তা বিভাগ গুলো (এনএসআই, ডিজিএফআই, র‌্যাব) সবার সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারা জানিয়েছে এমন কোন নিরাপত্তা ঝুঁকি নেই। আর গতবছর বিশ্বকাপের সময় দেশের পরিস্থিতি আরও খারাপ ছিল। তখনও অস্ট্রেলিয়া আমাদের এখানে ক্রিকেট খেলে গেছে। আমি মনে করিনা এখানে ক্রিকেট খেলতে এসে কোন ধরণের নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকার কথা। তবে ওদের একজন নিরাপত্তা পরিদর্শক বাংলাদেশে আসছে। এই বিষয়ে আমার সঙ্গে কথা বলতে চাইছে। আমিও কথা বলতে রাজি হয়েছি। আশা করি কাল কথা বলে সব কিছুই ঠিক হয়ে যাবে। অন্যদিকে সন্ত্রাসী হামলা হতে পারে বলে শুধু ক্রিকেটারদের জন্যই নয় বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদেরকেও সাবধান করেছে সেই দেশের সরকার। এই মুহুর্তে দেশে সন্ত্রাসী হামলার বিষয় নিয়ে নাজমুল হাসান পাপন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, আসলে ওদের একটি সংস্থা আছে, ডিপার্টমেন্ট অব ফরেন অ্যাফেয়ার্স এন্ড ট্রেড (ডিএফএটি)। তারা জানিয়েছে বাংলাদেশে আস্ট্রেলিয়ার নাগরিকদের উপর হামলা হতে পারে। তবে কোন সূত্র থেকে এটি তারা পেয়েছে সেটি আমাদেরকে জানানো হয়নি। তাই সরকারের এই সংস্থার তথ্যের উপর ভিত্তি করেই অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট বোর্ড বাংলাদেশ আসার সময়টি পিছিয়ে দিতে চেয়েছে। কারণ তারা হয়তো বিষয়টি আরও ভাল করে জানতে ও দেখতে চাইছে। নিরাপত্তা প্রশ্নে কেউ ছাড় দিতে চাইবেনা। অন্যদিকে বাংলাদেশের বর্তমান রাজনৈতিক অবস্থা ও দেশের নিরাপত্তা নিয়ে নাজমুল হাসান বলেন, দেখেন ২০১৪ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় দেশের রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা পরিস্থিতি ভীষণ খারাপ ছিল। তখনও অস্ট্রেলিয়া নিরাপত্তার ইস্যুটা আমাদেরকে জানিয়েছিল। কিন্তু তখন আমাদের নিরাপত্তার যে পরিকল্পনা ও ব্যবস্থা ছিল তা দেখে তারা কিন্তু ঠিকই বাংলাদেশে এসেছে। আমি মনে করিনা এখন বাংলাদেশে নিরাপত্তার কারণে ক্রিকেট সফর পিছানোর বা বাতিল করার মত কিছু আছে। আর এমন বিষয় আমাদের পক্ষে মেনে নেয়াও সম্ভব নয়। অন্যদিকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের অগ্রগতি ঠেকাতে এটি কোন অন্তুর্জাতিক ষড়যন্ত্র কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে বোর্ড সভাপতি বলেন, এখনই আমি এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করেেত চাইনা। এখন পর্যন্ত যে তথ্য আছে এটিকে ষড়যন্ত্রও বলা যাবেনা। আমি আগে বিষয়টি পুরপুরি জানি। ওদের নিরাপত্তা প্রতিনিধির সঙ্গে আমাদের কথাও হবে দেখি সে কি বলেন এরপরই এই সব বিষয়ে কথা বলা যাবে। তবে রোববার অস্ট্রেলিয়ার নিরপত্তা পরিদর্শক কখন কথা বলবে সেটি এখনও ঠিক হয়নি বলে জানার বিসিবি সভাপতি। তিনি ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, আসলে রোববার মিরপুরে ১২টায় আমার একটি অনুষ্ঠান আছে। আমি তখনই ঠিক করবো কোথায় আর কখন তার সঙ্গে কথা বলবো। আর একটি বিষয় আমি বারবারই বলছি। আমি আবারও বলছি এই নিরাপত্তা ইস্যুটি শেষ পর্যন্ত ক্রিকেট সূচিতে কোন বাধা হবেনা। কারণ আমি কোন ভাবেই মনে করিনা যে ক্রিকেট খেলতে এসে বাংলাদেশে কোন নিরাপত্তার ঝুকি হতে পারে। এছাড়াও এই বিষয়ে বিসিবি’র সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, আমি মনে করিনা অস্ট্রেলিয়া সফরের সময় সূচি কোন ভাবে পরিবর্তন হবে। ওরা হয়তো একটু দেখবে কারণ হাতে আরও সময় আছে। হয়তো সেই হিসিবে কয়েকটা দিন দেরি করে আসবে। বাংলাদেশ সফরে ২ ম্যাচের একটি টেস্ট সিরিজ খেলার কথা রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। ৩রা অক্টোবর ফতুল্লা খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে তিন দিনের একটি প্রস্তুতি ম্যাচও খেলার কথা ছিল। এরপর প্রথম টেস্ট ৯ই অক্টোবর চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ স্টেডিয়ামে ও দ্বিতীয় টেস্ট ১৭ অক্টোবর ঢাকায় মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় টেস্ট খেলা কথা রয়েছে। এর আগে টেস্ট খেলতে অস্ট্রেলিয়া দল প্রথম বাংলাদেশে আসে ২০০৬ সালে। পরে ২০১১ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩ ম্যাচের একটি ওয়ানডে সিরিজও খেলে গিয়েছে অজিরা।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/94074_images.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/94074_images.jpgঅর্ণব ভট্টখেলাধুলা
প্রায় ৯ বছর পর অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বাংলাদেশে টেস্ট সিরিজ খেলতে আসার কথা ছিল ২৭শে সেপ্টেম্বর। কিন্তু নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে দলটি তাদের আসার সময় পরিবর্তন করেছে এর মধ্যেই। এদিকে বাংলাদেশে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের কোন ঝুঁকি আছে বলে মনে করেননা ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তিনি...