1438716921
প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগে জাসাস ও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনের বিরুদ্ধে ঢাকায় মামলা হয়েছে। গত সোমবার রাতে ঢাকার পল্টন থানায় মামলা দায়ের করেন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক ফজলুর রহমান। এই মামলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র ও প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়কে ‘অপহরণ ও হত্যার ষড়যন্ত্রের’ অভিযোগ আনা হয়েছে। উল্লেখ্য, এই মোহাম্মদ উল্লাহ মামুন হলেন জয়কে অপহরণের ষড়যন্ত্রের দায়ে মার্কিন আদালতে সাজাপ্রাপ্ত রিজভী আহমেদ সিজারের পিতা। ওই ষড়যন্ত্রে মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলেও তখন উপযুক্ত প্রমাণের অভাবে তিনি মামলা থেকে রেহাই পান। মামুন বিএনপির সহযোগী সংগঠন জাসাসের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি এবং যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সহ-সভাপতি ছিলেন। পরিবার নিয়ে কানেটিকাটের ফেয়ারফিল্ড কাউন্টিতে বসবাস করেন তিনি।

পল্টন থানার ওসি মোরশেদ আলম ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, দায়ের করা মামলার এজাহারে জাসাস নেতা মামুন ছাড়া আর কারও নাম না থাকলেও বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের অন্য নেতারাও এতে জড়িত থাকতে পারেন বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের কাছে ডিবির যুগ্ম-কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই’র এক সাবেক ও একজন বর্তমান এজেন্টকে নিয়ে সজীব ওয়াজেদ জয়কে অপহরণ ও হত্যার ষড়যন্ত্র করা হয়। এদের সঙ্গে মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে জাসাস নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনের ছেলে রিজভী আহমেদ সিজারও ছিলেন। এ ঘটনায় তাদের সাজাও হয়েছে। কিন্তু এ ঘটনার ষড়যন্ত্র হয়েছিল পল্টনে জাসাসের প্রধান কার্যালয়ে। মূল ঘটনাস্থল জাসাসের কার্যালয় হওয়ায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রেক্ষিতেই পল্টন মডেল থানায় মামলাটি করা হয়েছে।

মনিরুল ইসলাম আরো বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে বিএনপির কোনো কোনো নেতা ও জোটের কেউ জড়িত থাকতে পারেন। রিজভীর বাবা জাসাস নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ মামুন দুই বছর ধরে নিউইয়র্কে আছেন। তার মাধ্যমেই এ ষড়যন্ত্রে বিভিন্ন নেতাদের সমন্বয় হয়। তিনি জানান, ‘ডিবি দক্ষিণের সহকারী কমিশনার হাসান আরাফাত এ ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তা। যেহেতু ঘটনাস্থল একাধিক রয়েছে সেহেতু মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নিউইয়র্কে গিয়ে এফবিআইয়ের সহায়তা নেবেন।’

সূত্র মতে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে থাকেন যুক্তরাষ্ট্রের ভার্জিনিয়ায়। জয়ের ক্ষতিসাধনের উদ্দেশ্যে মামুনের ছেলে রিজভী আহমেদ সিজার ষড়যন্ত্র করেন। আর এই ষড়যন্ত্রের গোপন তথ্য দেশটির আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সংরক্ষিত ছিল। সেই গোপন তথ্য পেতে এফবিআইএর এক কর্মকর্তাকে ঘুষ দেয়ার অপরাধে গত ৪ মার্চ মামুনের ছেলে রিজভী আহমেদ সিজারকে সাড়ে তিন বছরের কারাদণ্ড দেয় যুক্তরাষ্ট্রের একটি আদালত।

যুক্তরাষ্ট্রে সিজারের সাজা ঘোষণার পর চলতি বছরের ৯ মার্চ সজীব ওয়াজেদ জয় তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন, আমাকে যখন কেউ হত্যার চেষ্টা করছে, সেটিকে তখন আমি খুবই ব্যক্তিগত ব্যাপার হিসেবে নিচ্ছি। যারা এর জন্য দায়ী, তারা বিএনপির যতো উচ্চ পর্যায়ের নেতৃত্বই হোক না কেন, আমি তাদের হদিস বের করে বিচারের মুখোমুখি করব।

হীরা পান্নাজাতীয়
প্রধানমন্ত্রী পুত্র সজীব ওয়াজেদ জয়কে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগে জাসাস ও যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি নেতা মোহাম্মদ উল্লাহ মামুনের বিরুদ্ধে ঢাকায় মামলা হয়েছে। গত সোমবার রাতে ঢাকার পল্টন থানায় মামলা দায়ের করেন মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক ফজলুর রহমান। এই মামলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পুত্র ও প্রধানমন্ত্রীর তথ্য-প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা...