court_101799
বিচারকের স্বাক্ষর জালিয়াতির মামলায় ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের পিয়ন শেখ মো নাঈমকে তিনদিনের রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। রবিবার ঢাকা মহানগর হাকিম এস এম মাসুদ জামান এই আদেশ দেন।

এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ সহকারী পরিচালক মো শফি উল্লাহ সাংবাদিকদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আসামিকে গোপনে আদালতে হাজির করে সাতদিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। পরে ঢাকার আদালতের দুদকের জেনারেল রেকর্ডি শাখার কর্মকর্তারা জানায়, আসামি শেখ মো নাঈমকে তিন দিন রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন বিচারক। এরই মধ্যে আসামিকে দুদকের আলাদা গাড়িতে করে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

রিমান্ড আবেদনে বলা হয়, আসামি শেখ মো. নাঈমকে ২৩ আগস্ট র‌্যাব-২ গ্রেফতার করে হস্তান্তর করে। এই আসামি আদালতের নথিপত্র জাল করে ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে ভুয়া জামিননামা দিয়ে বিভিন্ন মামলার আসামিদের কারগার থেকে জামিনে মুক্তির ব্যবস্থা করেছে। এর ফলে আদালতের ভাবমূর্তির চরম ক্ষতি হয়। এই ঘটনার সঙ্গে আদালতের অন্য কোন কর্মকর্তা জড়িত আছে কিন এবং বাইরের প্রতারক ও জালিয়াত চক্রের নাম ঠিকানাসহ গ্রেফতারের জন্য আসমিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।

এর আগে এই আসামি আদালত থেকে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে বিচারকের নকল স্বাক্ষর ও সিল দিয়ে প্রস্তুত করা ভুয়া জামিননামা পঠিয়ে আসামিদের মুক্ত করেছিলেন। সেই ভুয়া জামিননামায় আসামিদের নাম-ঠিকানার পাশাপাশি স্থানীয় জামিনদারের পরিচয় এবং আসামিদের আইনজীবীর স্বাক্ষর ও সিল দেওয়া ছিল। তবে এসব বিষয়ে মামলার নথিপত্রে বিচারকের কোনো আদেশ ছিল না। এমনকি আসামিদের মুক্তির বিষয়ে আদালত থেকে কোনো আদেশও দেওয়া হয়নি কারা কর্তৃপক্ষকে।

কংকা চৌধুরীপ্রথম পাতা
বিচারকের স্বাক্ষর জালিয়াতির মামলায় ঢাকার দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের পিয়ন শেখ মো নাঈমকে তিনদিনের রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। রবিবার ঢাকা মহানগর হাকিম এস এম মাসুদ জামান এই আদেশ দেন। এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দুদকের উপ সহকারী পরিচালক মো শফি উল্লাহ সাংবাদিকদের চোখ ফাঁকি দিয়ে আসামিকে গোপনে...