93615_thumb_b3
ক’দিন ধরেই ছিল ভ্যাপসা গরম। বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের কারণে বৃষ্টির প্রভাব বেড়েছে। গতকালের বৃষ্টি শান্তির পরশ বুলালেও বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা ও যানজটে নাকাল হয়েছেন রাজধানীবাসী। গতকাল সকাল থেকে দিনভর হালকা থেকে ভারি বর্ষণে তলিয়ে যায় রাজধানীর অধিকাংশ এলাকা। একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে যানজট। ফলে ঈদের ছুটিতে ঘরমুখো মানুষ পড়েন চরম ভোগান্তিতে। বিশেষ করে নারী, শিশু ও প্রবীণদের ভোগান্তি ছিল উল্লেখ করার মতো। গতকাল রাজধানীর মিরপুর, ফার্মগেট, ধানমণ্ডি, নিউমার্কেট, কাওরানবাজার, তেজগাঁও, শান্তিনগর, মালিবাগ, মৌচাক, মহাখালী, শাহবাগ, গুলিস্তান, পল্টন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এমন চিত্র। এসব এলাকার সড়কগুলোতে দেখা গেছে কোথাও হাঁটু সমান পানি, কোথাওবা তার চেয়ে বেশি পানিতে তলিয়ে গেছে রাস্তাগুলো। এছাড়া এসব এলাকায় যানজট ছিল চোখে পড়ার মতো। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, গতকাল সকাল ৯টা পর্যন্ত ৩ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। কিন্তু এ বৃষ্টিতেই চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় নগরবাসীকে।
কাকরাইল, মালিবাগ, মৌচাক, শান্তিনগরসহ বেশকিছু এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, শুধু যানচলাচলের সড়ক
নয়, অনেক জায়গায় পথচারী চলাচলের ফুটপাথও ছিল পানির নিচে। ফলে সাধারণের চলাচল করতে অবর্ণনীয় কষ্ট পোহাতে হয়। এদিকে শনিবার থেকে রাজধানীতে শুরু হয়েছে কোরবানির পশুর বাজার। শুরু হতে না হতেই পশুরহাটগুলো পড়েছে বৃষ্টি আর জলাবদ্ধতার কবলে। ফলে কাঙ্ক্ষিত ব্যবসা হচ্ছে না বলে দুশ্চিন্তায় আছেন গরু ব্যবসায়ীরা। সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস ছিল গতকাল। সকালে ফার্মগেট এলাকায় দেখা যায় গণপরিবহনের জন্য অসংখ্য কর্মব্যস্ত ও কর্মস্থলগামী মানুষ অপেক্ষায় আছেন। কথা বললে তারা জানান, নিজ নিজ কর্মস্থলে যেতে সবাই বৃষ্টি, জলাবদ্ধতা মাড়িয়ে বাসা থেকে কাঙ্ক্ষিত বাসে ওঠার জন্য এসেছেন। কিন্তু অনেকেই প্রায় ঘণ্টাখানেক অপেক্ষা করেও কোন বাসে উঠতে পারেননি। মিরপুর থেকে গুলিস্তানগামী ইটিসি পরিবহনের কয়েকজন চালক ও সহকারী ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, টানা বৃষ্টিতে মিরপুরের ১০ নম্বর গোলচত্বর, শেওড়াপাড়া, কাজীপাড়া, আগারগাঁও এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে এসব এলাকায় যানজট বেড়েছে। অন্যদিকে ফার্মগেটের খামারবাড়ী সিগন্যাল পার হতে ২০ থেকে ৪০ মিনিট পর্যন্ত সময় লাগছে। একারণে কোন গাড়িই সঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছতে পারছে না। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তুষার ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, সকালে কাজীপাড়ার বাসা থেকে হাঁটু সমান পানি মাড়িয়ে অনেক কষ্টে বাসে উঠেছিলাম। কিন্তু ফার্মগেট পার হতেই প্রায় দেড় ঘণ্টা চলে গেছে। গুলিস্তান থেকে ফার্মগেট অভিমুখী বেশকিছু গণপরিবহনের লাইনম্যানরা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, শাহবাগ সিগন্যাল পার হতেই ক্ষেত্রবিশেষে আধা ঘণ্টা থেকে একঘণ্টা পর্যন্ত সময় লাগছে। শাহবাগ ও তার আশপাশ এলাকায় জলাবদ্ধতার কারণে যানজট বেড়েছে বলে জানান তারা। গতকাল ভোর থেকে একটানা বৃষ্টির পানিতে রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়ায় বিপাকে পড়েন স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা। বাসা থেকে বেরুতেই বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়েছে তাদের। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় শিক্ষার্থীদের অনেককে ছাতা মাথায়, পা গুটিয়ে, জুতা হাতে কাদা পানি মাড়িয়ে রাস্তায় হাঁটতে দেখা গেছে। এছাড়া, খোলা ম্যানহোলের ভয়ও ছিল তাদের। অভিভাবকরাও একই কায়দায় রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা করেছেন। রাজধানীর ফার্মগেটের পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় দেখা গেছে, বৃষ্টির পানিতে জলাবদ্ধতার কারণে ওই এলাকার জীবনচিত্র অনেকটাই থমকে গেছে। দুপুর পর্যন্ত এ জলাবদ্ধতা চলে। দুপুরের পর পানি সরে গেলেও কাদাপানিতে মাখামাখি হয়ে চলাচল করতে হয়েছে এখানকার বাসিন্দাদের। এলাকার মুদি ব্যবসায়ী এরশাদ উদ্দিন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা এই এলাকার পুরনো সমস্যা। কিন্তু দীর্ঘ দিন এ সমস্যা থাকলেও সমস্যা নিরসনে কোন উদ্যোগ নেই। উপরন্তু বর্ষা এলেই ড্রেনেজ ব্যবস্থা, পানির লাইন ঠিক করার নামে রাস্তা কাঁটাছেড়া শুরু হয়।
এদিকে গতকাল রাজধানীর বেশকিছু জলাবদ্ধপ্রবণ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বৃষ্টি আর জলাবদ্ধতার অজুহাতে রিকশা ভাড়াও প্রায় দ্বিগুণ, তিনগুণ বেড়ে যায়। কোথাও কোথাও রিকশার মাধ্যমে রাস্তা পার হতে ৫ থেকে ১০ টাকা নেয়া হয়েছে। বিশেষ করে ঈদ উপলক্ষে ঘরমুখো বিভিন্ন বয়সী যাত্রীরা ছিলেন একেবারে অসহায়। বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার অজুহাতে সিনজিচালিত অটোরিকশার ভাড়াও দ্বিগুণ বেড়ে যায়। সিএনজি চালকরাও তাদের মর্জিমতো যাত্রীদের কাছ থেকে ভাড়া আদায় করেছেন। এদিকে শনিবার থেকে রাজধানীতে শুরু হয়েছে কোরবানির পশুরহাট। তবে, শুরু হতে না হতেই পশুরহাটগুলো পড়েছে বৃষ্টি আর জলাবদ্ধতার কবলে। যে কারণে কাঙ্ক্ষিত ব্যবসা হচ্ছে না বলে দুশ্চিন্তায় আছেন গরু ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন বৃষ্টি আর জলাবদ্ধতার কারণে হাটগুলোতে ক্রেতা সংকট চলছে।

অর্ণব ভট্টঅন্যান্য
ক’দিন ধরেই ছিল ভ্যাপসা গরম। বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের কারণে বৃষ্টির প্রভাব বেড়েছে। গতকালের বৃষ্টি শান্তির পরশ বুলালেও বৃষ্টিতে সৃষ্ট জলাবদ্ধতা ও যানজটে নাকাল হয়েছেন রাজধানীবাসী। গতকাল সকাল থেকে দিনভর হালকা থেকে ভারি বর্ষণে তলিয়ে যায় রাজধানীর অধিকাংশ এলাকা। একই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে যানজট। ফলে ঈদের ছুটিতে ঘরমুখো মানুষ পড়েন...