1439278021
চার বছর বয়সের শিশু সন্তান সাকিবকে রাম দা দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যার অভিযোগে পিতাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামী হলো- দুর্গাপুর উপজেলার মেনকিকান্দা গ্রামের মো. আবু হানিফ (৩৫)।

মঙ্গলবার নেত্রকোনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. আব্দুল হামিদ এই রায় প্রদান করেন। মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত তাকে গলায় ফাঁসি দিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। ঘটনার পর ৭ বছর বিচার কার্যক্রম চলার পর এই রায় প্রদান করা হয়।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, দুর্গাপুরের মেনকিকান্দা গ্রামের আবু হানিফের সঙ্গে একই এলাকার আয়শা খাতুনের বিবাহ হয়। তাদের চারটি ছেলে সন্তান রয়েছে। কিন্তু পারিবারিক কলহের কারণে আয়শা খাতুন স্বামীর বাড়িতে সন্তান ফেলে রেখে পিতার নিকট চলে যান। চার সন্তানের মধ্যে সাকিব ছিলেন সবার ছোট। এই শিশু সন্তানটি মায়ের জন্য কান্নাকাটি করতো। ঘটনার দিন ২০০৮ সালের ১৫ জুলাই সাকিব সকালে বাড়ির উঠানে মা মা বলে কান্নাকাটি করতে থাকলে বাবা আবু হানিফ ক্রোধান্বিত হয়ে ঘরে থাকা ধারালো রাম দা দিয়ে সাকিবের বুকে কোপ দিলে সাকিব ঘটনাস্থলেই মারা যায়। খবর পেয়ে আয়াশা তার স্বামী আবু হানিফের বিরুদ্ধে দুর্গাপুর থানায় ঐ দিনই মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ তদন্ত শেষে ১১ সেপ্টেম্বর অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করলে বিজ্ঞবিচারক উভয় পক্ষের সাক্ষ্য প্রমাণাদি গ্রহণান্তে উপরোক্ত রায় প্রদান করেন। এই মামলায় ৮ জন সাক্ষির সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম এবং আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম খান।

হীরা পান্নাআইন-আদালত
চার বছর বয়সের শিশু সন্তান সাকিবকে রাম দা দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যার অভিযোগে পিতাকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামী হলো- দুর্গাপুর উপজেলার মেনকিকান্দা গ্রামের মো. আবু হানিফ (৩৫)। মঙ্গলবার নেত্রকোনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. আব্দুল হামিদ এই রায় প্রদান করেন। মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত তাকে গলায়...