উখিয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা ।
মিয়ানমার সেনা নির্যাতনে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা উখিয়ার ৮টি অস্থায়ী ক্যাম্পে প্রত্যাবাসনের অপেক্ষা করলেও সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ অব্যাহত রয়েছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।
গত ২৩ নভেম্বর প্রত্যাবাসন চুক্তির পর থেকে এ পর্যন্ত ৭৪ হাজার ৬শ ১৮জন রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে বলে আইওএম প্রকাশিত মাসিক তথ্য বিবরণীর উদ্বৃতি দিয়ে রোহিঙ্গা নেতা ডা. জাফর আলম জানিয়েছেন। তবে আর্ন্তজাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) প্রোগ্রাম অফিসার শিরীন আক্তার জানান, শনিবার অফিস বন্ধ থাকায় সঠিক তথ্য দেওয়া যাচ্ছে না।

এদিকে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নিকারুজ্জামান ও পার্শ্ববর্তী নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ সরওয়ার কামাল শনিবার সকালে উখিয়া টিভি রিলে কেন্দ্রস্থ রোহিঙ্গা ট্রানজিট ক্যাম্পে অগ্নিকান্ডে একই পরিবারের ৪ রোহিঙ্গা নিহত হওয়ার ঘটনা তদন্ত করতে গেলে সেখানে দায়িত্বরত আন্তর্জাতিক রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির লোকজন বাধা দেয়। এ সময় কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সোসাইটির লোকজন জানতে পেরেও দুই ইউএনও-কে ঘটনাস্থলে যেতে না দেয়নি। পরে তদন্ত না করে তারা কর্মস্থলে ফিরে যান। দুই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে যাওয়ার চেষ্টা করে যখন বাধাপ্রাপ্ত হন, তখন শতশত স্থানীয় বিষয়টি প্রত্যক্ষ করে অবাক হয়ে পড়েন। তারা বলেন, ‘তারা এতো সাহস পেলো কোথা থেকে, তা খতিয়ে দেখা উচিত।’

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে উখিয়া ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদ্বয় ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আলী হোসেনকে লিখিতভাবে বিষয়টি জানানো হয়েছে।
খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/01/234.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2018/01/234-300x300.jpgশিশির সমরাটস্বদেশের খবর
উখিয়া (কক্সবাজার) সংবাদদাতা । মিয়ানমার সেনা নির্যাতনে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা উখিয়ার ৮টি অস্থায়ী ক্যাম্পে প্রত্যাবাসনের অপেক্ষা করলেও সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ অব্যাহত রয়েছে।খবর ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমের। গত ২৩ নভেম্বর প্রত্যাবাসন চুক্তির পর থেকে এ পর্যন্ত ৭৪ হাজার ৬শ ১৮জন রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বিভিন্ন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছে বলে...