l3fpdjlf-150x94
চাঁদপুরের কচুয়ায় চাঁদা না দেওয়ায় হামলা চালিয়ে অর্ধশত ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের আহত করার ঘটনায় গোয়েন্দা পুলিশ সাতজনকে গ্রেফতার করেছে। এদের মধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি চারজন হচ্ছে, মনির হোসেন , মো. লিটন, মোজাম্মেল হোসেন ও পপি আক্তার । ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ওয়াজউল্যাহ, সবুজ ও আলাউদ্দিন নামে আরো তিনজনকে আটক করা হয় । চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামছুন্নাহার সোমবার সন্ধ্যায় এক প্রেস বিফিংয়ে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান ।

ঢাকা-চাঁদপুর রুটের এমভি জমজম লঞ্চ এবং সাচার এলাকায় গোয়ন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে এদের আটক করে ।

আটকৃতদের মধ্যে লিটন নিজেকে ইউনিয়ন যুবলীগ সদস্য আর মনির হোসেন নিজেকে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দাবি করেছে ।

রোববার রাতে ভূইয়ারা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র সরকার বাদী হয়ে ফারুক, লিটন ও মনিরসহ আটজন নামধারী ও অজ্ঞাত আরও ১৫ জনকে আসামি করে কচুয়া থানায় একটি মামলা করে। মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার অভিযোগ আনা হয়।

জানা যায়, স্থানীয় যুবলীগ কর্মী ফারুক, লিটন ও মনিরসহ একদল যুবক শুক্রবার রাতে স্কুলে এসে ১৫ আগস্টের অনুষ্ঠান করার জন্য ১৫ হাজার টাকা দাবি করে। তখন টাকা না দেওয়ায় স্কুলের প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র সরকার ও সহকারী শিক্ষক ফজলুর রহমানকে তারা লাঞ্ছিত করে। এ ঘটনার প্রতিবাদে রোববার স্কুলের শিক্ষার্থীরা স্কুলপ্রাঙ্গণে মিছিল করলে যুবলীগ কর্মীরা অস্ত্রশস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় কমপক্ষে অর্ধশত শিক্ষার্থী আহত হয়। আহতদের মধ্যে ২৫ জনকে ভর্তি করা হয় হাসপাতালে ।

পুলিশ সুপার শামছুন্নাহার ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, প্রত্যেক অপরাধীকে সে যে-ই হোক তাদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় নিয়ে আসব।

কংকা চৌধুরীশেষের পাতা
চাঁদপুরের কচুয়ায় চাঁদা না দেওয়ায় হামলা চালিয়ে অর্ধশত ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের আহত করার ঘটনায় গোয়েন্দা পুলিশ সাতজনকে গ্রেফতার করেছে। এদের মধ্যে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি চারজন হচ্ছে, মনির হোসেন , মো. লিটন, মোজাম্মেল হোসেন ও পপি আক্তার । ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার দায়ে ওয়াজউল্যাহ, সবুজ ও আলাউদ্দিন নামে আরো তিনজনকে...