1443380164
চট্টগ্রাম মহানগরী ও তত্সংলগ্ন এলাকার বিনোদন কেন্দ্র ও পার্কসমূহে গতকাল রবিবার পর্যন্ত শিশু-কিশোরদের ছিল উপচেপড়া ভিড়। ঈদের দিন বিকাল থেকেই বিনোদন কেন্দ্রসমূহে শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সী লোকজনের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। চট্টগ্রাম মহানগরীর বিনোদন কেন্দ্র ও পার্কসমূহের মধ্যে রয়েছে নগরীর পার্শ্বস্থ পতেঙ্গা সী-বীচ। শহরের সন্নিকটে পতেঙ্গার এ বীচে শুধু ঈদে কিংবা অন্যান্য ছুটিতে নয়, পুরো বছরই বিপুলসংখ্যক ভ্রমণবিলাসী লোকদের সমাগম ঘটে। পাহাড়-টিলা, নদী ও সমুদ্রের এক অপরূপ সম্মিলন হলো চট্টগ্রাম। আর চট্টগ্রাম নগরীতেই এর সবগুলোর বৈচিত্র্য উপভোগ করা সম্ভব। যা শুধু দেশেরই নয়, অনেক উন্নত বিশ্বেও অনুপস্থিত। কিন্তু সেই পতেঙ্গা বীচও এক প্রকার অরক্ষিত। বীচের যে উন্মুক্ত আবহ তা অসংখ্য ছোট-বড় দোকানপাট, হকার ও বখাটের অবাধ বিচরণের কারণে অনেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়। কিন্তু এরপরও সমুদ্রের ঢেউ এবং অদূরে অপেক্ষমাণ ছোট-বড় অসংখ্য জাহাজের অবস্থান সবাইকে মুগ্ধ করে।

নগরীর মধ্যে শিশু-কিশোরদের পার্ক বা বিনোদন কেন্দ্রসমূহের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ফয়’স লেকস্থ কনকর্ড এমিউজমেন্ট পার্ক। নগরীর অন্য পার্কগুলোর তুলনায় এটা অনেকটাই পরিচ্ছন্ন। লেক এবং তত্সংলগ্ন এলাকা নিয়ে কটেজ, সুইমিং ও বিপুলসংখ্যক রাইড নিয়ে একটি পরিপূর্ণ বাণিজ্যিক বিনোদন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে উঠেছে। এছাড়া রয়েছে নগরীর উত্তর-পশ্চিমাংশে বহদ্দারহাট এলাকায় রয়েছে স্বাধীনতা পার্ক। স্বাধীনতার ঘোষণাস্থল কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র নিয়ে গড়ে উঠা স্বাধীনতা পার্ক চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন কর্তৃক পরিচালিত হয়। নগরীর ফয়’স লেক এলাকায় রয়েছে জেলার একমাত্র চিড়িয়াখানা। জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় সীমিত সংখ্যক পশু-পাখি থাকলেও শিশুদের জন্য খুবই দর্শনীয় বস্তু। সম্ভবত এরই কারণে অভিভাবকদের হাত ধরে গত কয়েক দিনে বিপুলসংখ্যক দর্শনার্থী দেখা যায়। টিকেট বিক্রি সংখ্যা দেখে সহজে অনুমান করা যায় অন্যান্য সময়ের তুলনায় ঈদের বন্ধে দর্শনার্থীর সংখ্যা বেশি। নগরীর আগ্রাবাদ জাম্বুরী মাঠ সংলগ্ন কর্ণফুলী পার্ক ও চট্টগ্রাম সার্কিট হাউস সংলগ্ন শিশু পার্কেও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক শিশু-কিশোরদের উপস্থিতি লক্ষ্যণীয়। এ দু’টি পার্কে আড্ডা এবং জমিয়ে গল্পগুজবের দৃশ্য বেশি দেখা যায়। অন্যান্য সময় এ দৃশ্যগুলো বেশি দেখা গেলেও ঈদের এ ক’দিনে শিশুদের উপস্থিতি লক্ষ্যণীয় ছিল। আবার নগরীর অতি সন্নিকটে আনোয়ারা এলাকায় সমুদ্র উপকূলীয় পার্কে বীচ এলাকায়ও নগরীর অনেক ভ্রমণবিলাসী ছুটে যেতে দেখা গেছে। ‘চট্টগ্রাম মহানগরীর এ সকল বিনোদন কেন্দ্রসমূহে শুধু নগরবাসীই নয়। ঈদুল আজহা উপলক্ষে চট্টগ্রামে ঈদ করতে আসা লোকজনের উপস্থিতি ছিল উল্লেখ করার মতো।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/1443380164.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/1443380164-300x300.jpgঅর্ণব ভট্টবিনোদন
চট্টগ্রাম মহানগরী ও তত্সংলগ্ন এলাকার বিনোদন কেন্দ্র ও পার্কসমূহে গতকাল রবিবার পর্যন্ত শিশু-কিশোরদের ছিল উপচেপড়া ভিড়। ঈদের দিন বিকাল থেকেই বিনোদন কেন্দ্রসমূহে শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সী লোকজনের ভিড় লক্ষ্য করা যায়। চট্টগ্রাম মহানগরীর বিনোদন কেন্দ্র ও পার্কসমূহের মধ্যে রয়েছে নগরীর পার্শ্বস্থ পতেঙ্গা সী-বীচ। শহরের সন্নিকটে পতেঙ্গার এ বীচে শুধু ঈদে...