image_256504.micil
১৯৭১ সালের ১৫ আগষ্ট যে পথ দিয়ে ঘাতকরা ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে গিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করে ছিলো সেই পথেই আলোর মিছিল করেছে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানেরা। আজ শুক্রবার রাতে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া। পরে সেখান থেকে আলোর মিছিলটি বের হয়ে বিভিন্ন পথ ঘুরে ৩২ নম্বরে গিয়ে শেষ হয়।
কর্মসূচির উদ্বোধনকালে ডেপুটি স্পিকার বলেন, কতিপয় বিশ্বাসঘাতক ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাজধানীর জাহাঙ্গীর গেইট দিয়ে মানিক মিঞা এভিনিউ হয়ে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু ভবনে গিয়ে জাতির পিতাকে হত্যা করে বাঙ্গালী জাতিকে অন্ধকারে নিমজ্জিত করে। যে পথে ঘাতকের ট্যাঙ্ক গিয়ে জাতির পিতাকে হত্যা করেছিলো সে পথে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা আলো জ্বালিয়ে সমগ্র বাংলাদেশকে আলোকিত করেছে। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জাতির পিতার প্রতি এই শ্রদ্ধা নিবেদন স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তিনি এই শোকের মাসে জাতির শোককে শক্তিতে পরিণত করে জাতির পিতার আদর্শে ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশ গড়ার কাজে নিবেদিত হওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।
আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান কেন্দ্রীয় কমিটি আয়োজিত এই কর্মসূচিতে আরো উপস্থিত ছিলেন গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান ইসমত কাদির গামা ও মহাসচিব এমদাদ হোসেন মতিন, সংগঠনের ভাইস প্রেসিডেন্ট মিজান রহমান, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ম. হামিদ, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান চৌধুরী, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি ওমর ফারুক, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন মঞ্চের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক মিয়া।

অর্ণব ভট্টজাতীয়
১৯৭১ সালের ১৫ আগষ্ট যে পথ দিয়ে ঘাতকরা ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে গিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করে ছিলো সেই পথেই আলোর মিছিল করেছে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানেরা। আজ শুক্রবার রাতে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া। পরে সেখান থেকে...