kader_siddiki-290x160
মানহানি মামলায় বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর (বীরউত্তম) বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ২ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত।
ঢাকা মহানগর হাকিম আলি মাসুদ শেখ রবিবার এ দিন ধার্য করেন।

মানহানি মামলায় কাদের সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে রবিবার অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য ছিল। কাদের সিদ্দিকী আদালতে হাজির না হওয়ায় অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য এ দিন ধার্য করা হয়।

ঢাকা মহানগর হাকিম আলী মাসুদ সেখ ২০১৪ সালের ১১ নভেম্বর কাদের সিদ্দিকী আদালতে হাজির না হওয়ায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

২০১৩ সালের ১৮ মার্চ ঢাকা মহানগর হাকিম সাইফুর রহমান তার জামিন মঞ্জুর করেন। জামিন মঞ্জুর হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত তিনি আদালতে হাজির হননি।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের বক্তব্যে কাদের সিদ্দিকী তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীরকে উদ্দেশ করে বলেন, ‘রাজাকার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রেখে যুদ্ধাপরাধীর বিচার সম্ভব নয়। ১৯৭১ সালে ম খা আলমগীর ময়মনসিংহের এডিসি ছিলেন। রাজাকারদের পক্ষে কাজ করেছেন তিনি। আমি তার সাক্ষী।’
ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরকে সামাজিক, মানসিক, আর্থিক ও সাংগঠনিকভাবে হেয় করার জন্য সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যমূলকভাবে কাদের সিদ্দিকী এ বক্তব্য দিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন মজুমদার।

ওই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তিনি ২০১৩ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল এফ এস ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে লিখিত প্রতিবাদ ও উকিল নোটিশ পাঠান।

কাদের সিদ্দিকী উকিল নোটিশের কোনো উত্তর না দেওয়ায় রুহুল আমিন মজুমদার ওই বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর আদালতে দুই শ’ কোটি টাকার মানহানির মামলাটি করেন।

হীরা পান্নাআইন-আদালত
মানহানি মামলায় বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর (বীরউত্তম) বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য ২ নভেম্বর দিন ধার্য করেছেন আদালত। ঢাকা মহানগর হাকিম আলি মাসুদ শেখ রবিবার এ দিন ধার্য করেন। মানহানি মামলায় কাদের সিদ্দিকীর বিরুদ্ধে রবিবার অভিযোগ গঠন শুনানির দিন ধার্য ছিল। কাদের সিদ্দিকী আদালতে হাজির না হওয়ায় অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য এ...