1443434213
২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়তে সকলের সহযোগিতা কামনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি-জামাত জোট বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ব্যাহত করতে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। কিন্তু জনগণের সম্মিলিত প্রতিরোধে তাদের সে চেষ্টা ব্যাহত হয়েছে।

নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় রবিবার দুপুরে ম্যানহাটনের হোটেল হিলটনে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের দেওয়া নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, পররাষ্ট্রবিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সাবেক পরিবেশ ও বনমন্ত্রী ড. হাছান মামুদ, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম প্রমূখ। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মাহবুবুর রহমান, ফজলুর রহমান, প্রথম যুগ্ম সম্পাদক নিজাম চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক আইরিন পারভিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রহিম বাদশা, মহিউদ্দিন দেওয়ান, চন্দন দত্ত প্রমূখ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনরা বলেন, বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ৬ ভাগের উপরে রাখতে সক্ষম হয়েছি। বাংলাদেশের অর্থনীতি বেড়েছে। রেমিটেন্স বেড়েছে। রিজার্ভও বেড়েছে, যা ২৬ মিলিয়নের উপরে। সবদিক থেকে বাংলাদেশের অর্থনীতি আজ মজবুত ভিত্তির উপর দাঁড়িয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম যে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশ হবে, আজ বাংলাদেশ সেই মধ্যম আয়ের তেষে প্রথম সোপানে পা দিয়েছি। তিনি বলেন, এর পেছনে প্রবাসীদের এবং দেশে তাদের আত্মীয় স্বজনদের বিরাট অবদান রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে আমাদের সমস্যা ছিল বিশেষ করে গঙ্গার পানি ন্যায্য হিস্যা আমরা আদায় করেছি। স্থল-সীমান্ত চুক্তি কার্যকর হয়েছে। ছিটমহলবাসী ৬৮ বছর ধরে মানবেতন জীবন যাপন করতেন। আজ তারা বাংলাদেশের নাগরিক হয়েছেন। তাদের আজ একটা পরিচিতি আছে। তিনি বলেন, বিশ্বের এমন কিছু দেশ রয়েছে যারা আজো তাদের এ ধরনের সমস্যা সমাধান করতে পারেনি।

সমূদ্রসীমা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৪ সালে সমূদ্রসীমা আইন করে দিয়ে গিয়েছিলেন। সেই অধিকারটুকু নিয়ে পঁচাত্তরের পর কোনো সরকার সমূদ্রসীমা নিয়ে কাজ করেনি। আওয়ামী লীগ সরকার আসার পর আমরা সেই উদ্যোগ নিয়েছি, তার শুভ ফল পেয়েছি। ২০১৩ ও ২০১৪ নালে ভারত ও মিয়ারমারের কাছ থেকে আসরা বিশাল সমূদ্রসীমা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি। অর্থাৎ একটা স্বাধীন দেশ হিসাবে আমরা আমাদের স্বাধীনতা অক্ষুন্ন রেখেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশকে দারিদ্র্য দেশ হিসাবে সবাই একসময় অবহেলার চোখে দেখতো। কিন্তু এখন আর কেউ অবহেলার চোখে দেখতে পারবে না। কারণ আমরা দরিদ্রতা ৭ দশমিক ৯ ভাগে নামিয়ে এনেছি। এখন আর বাংলাদেশের মানুষকে খাবারের জন্য হাহাকার করতে হবে না।

অনুষ্ঠানে প্রবাসীদের জন্য নিউইয়র্ক থেকে বিমান চালুর ও জাতীয় আইডি ও ভোটার করার দাবি পূরনের আশ্বাস দেন প্রধানমন্ত্রী।

নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্থানে থেকে দলবেধে নেতাকর্মীরা সংবর্ধনাস্থলে আসেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশ করা হয়। অনুষ্ঠানে বিএনপি-জামাত জোটের ৯২ দিনের সহিংস রাজনীতির ওপর একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/1443434213.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/09/1443434213-300x300.jpgতাহসিনা সুলতানাজাতীয়
২০২১ সাল নাগাদ মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়তে সকলের সহযোগিতা কামনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি-জামাত জোট বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ব্যাহত করতে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। কিন্তু জনগণের সম্মিলিত প্রতিরোধে তাদের সে চেষ্টা ব্যাহত হয়েছে। নিউ ইয়র্কের স্থানীয় সময় রবিবার দুপুরে ম্যানহাটনের হোটেল হিলটনে...