untitled-8_158079
বান্দরবানের থানচি উপজেলার বড় মদক এলাকার দুর্গম পাহাড়ে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির সদস্যদের সঙ্গে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন ‘আরাকান আর্মি’র গোলাগুলির পর সেখানে চিরুনি অভিযান চলছে। যৌথ এই অভিযানে অংশ নেন সেনা, বিমান ও বিজিবির সদস্যরা। বুধবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে বান্দরবানের বড় মদক, বলিপাড়া ও বাতংপাড়া এলাকায় টহলরত বিজিবি সদস্যদের ওপর গুলি চালায় ‘আরাকান আর্মি’র সদস্যরা। এতে বিজিবির নায়েক জাকির হোসেন আহত হন। এর পর পাল্টা গুলি করেন বিজিবির সদস্যরা। পরে মিয়ানমারকেন্দ্রিক সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সমন্বিত আক্রমণ পরিচালনার জন্য হেলিকপ্টারে ওই এলাকায় অতিরিক্ত বিজিবি ও সেনাসদস্য পাঠানো হয়। দুপুর থেকে যৌথ অভিযানের পর বিকেল ৩টার দিকে বিচ্ছিন্নতাবাদীরা পিছু হটে। যৌথ অভিযানে কেউ হতাহত হননি। আরাকান আর্মি পিছু হটলেও যৌথ বাহিনীর সদস্যরা গহিন জঙ্গলে এখনও অবস্থান করছেন। বিচ্ছিন্নতাবাদীদের ধরতে তাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। বিজিবির একটি দল গতকাল বিকেলে ক্যাম্পে ফিরে এলেও যৌথ বাহিনীর কয়েকটি দল এখনও গহিন জঙ্গলে রয়েছে। সীমান্তে অতিরিক্ত বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। একই সঙ্গে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকেও আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। যৌথ অভিযানে বিচ্ছিন্নতবাদীরা যাতে পালাতে না পারে, সে লক্ষ্যে মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকা বন্ধ করে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ। মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এই আহ্বানে সাড়া দিয়ে আরাকান আর্মির বিরুদ্ধে তাদের সীমান্ত থেকে অভিযান চালাচ্ছে বলে জানা গেছে।

আরাকানের স্বাধীনতার দাবিতে দীর্ঘদিন ধরে গোপনে ‘সশস্ত্র আন্দোলন’ করে আসছে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন নিষিদ্ধ ঘোষিত ‘আরাকান আর্মি’।

বিজিবি বলছে, ওই বিচ্ছিন্নতাবাদী দলটি সকালে বিজিবির টহল দলের ওপর আক্রমণ করলে সীমান্তরক্ষী বাহিনীও জবাব দেয়। এ সময় বিজিবির নায়েক জাকির আহত হন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেছেন, মিয়ানমারের বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান লিবারেশন পার্টিকে দমনের জন্য যে ধরনের অপারেশন দরকার, তা চালানো হবে। বিজিবির আহত জওয়ানের যথোপযুক্ত চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদ ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকেবলেন, বান্দরবানের থানচিতে পরিস্থিতি এখন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষও এ ব্যাপারে কঠোর। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ তাদের সীমান্ত এলাকায় অভিযান চালাবে।

বিজিবির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, গত বুধবার বান্দরবানের মদক ও থানচি এলাকায় ১০টি ঘোড়া আটক করেন বিজিবি সদস্যরা। এর মধ্যে ৬টি ঘোড়া আটক করে মদকের বিজিবি ক্যাম্প ও ৪টি থানচি ক্যাম্প। এই ১০টি ‘অ্যারাবিয়ান হর্স’ আরাকান আর্মির। বিজিবির সদস্যরা ঘোড়া আটক করায় ক্ষুব্ধ হয় আরাকান আর্মির সদস্যরা।
দুর্গম এলাকায় হওয়ায় সহজ যোগাযোগের জন্য আরাকান আর্মির সদস্যরা এই ঘোড়াগুলো কিনে থাকে। মাদকসহ চোরাচালানের কাজে এসব ঘোড়া ব্যবহার করা হয়।

পাঁচ ঘণ্টা থেমে থেমে গোলাগুলি : বিজিবির দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার পৌনে নয়টার দিকে বিজিবির চট্টগ্রাম রিজিয়নের আওতাধীন বলিপাড়া ও বান্দরবানের মদক ও পার্শ্ববর্তী বাতংপাড়ায় নিয়মিত টহল দলের পর অতর্কিত আক্রমণ করে আরাকান আর্মির সদস্যরা। এ সময় মদক বিওপি ও আশপাশের টহলরত বিজিবি সদস্যরা পাল্টা আক্রমণ চালান। এর পর পাঁচ ঘণ্টা ধরে থেমে থেমে উভয় পক্ষের গোলাগুলি চলতে থাকে। পরে বিজিবির বিওপি ও টহল দলের শক্তি বাড়াতে হেলিকপ্টারের মাধ্যমে ২টি সেনা ও একটি বিজিবি টিম ঘটনাস্থলের কাছাকাছি গহিন জঙ্গলে পাঠানো হয়। নিকটবর্তী সেনাক্যাম্প থেকে আরও একটি দল সেখানে যায়। বিজিবির বিওপি ও টহল দলকে সহায়তা করতে বিমান বাহিনীর এফ-৭ বিমান ওই এলাকায় প্রদক্ষিণ শুরু করলে বাতংপাড়াস্থ টহল দল সন্ত্রাসীদের ওপর পাল্টা আক্রমণের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। আরাকান আর্মির সদস্যরা পিছু হটলে বিজিবির টহল দলের সদস্যরা নিরাপদে ক্যাম্পে ফেরত আসেন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘোড়া আটকের ঘটনাকে কেন্দ্র করে আরাকান আর্মির সদস্যরা বুধবার ভোররাত থেকে বড় মদকের বিজিবি ক্যাম্পের আশপাশে গহিন জঙ্গলে অবস্থান নেয়। সকাল সাড়ে নয়টার দিকে বিজিবি ক্যাম্প লক্ষ্য করে জঙ্গল থেকে আরাকান আর্মি গুলি ছোড়ে। বিজিবিও পাল্টা জবাব দেয়। উভয়ের মধ্যে ঘণ্টাব্যাপী গুলি বিনিময় চলে। আরাকান আর্মির গুলিতে বিজিবি নায়েক জাকির হোসেন আহত হন। তাকে উদ্ধার করে হেলিকপ্টারে গতকাল বিকেল ৪টার দিকে চট্টগ্রামে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় আরাকান আর্মির কতজন সদস্য হতাহত হয়েছে তা জানা যায়নি।

আরকান আর্মি ও বিজিবির মধ্যে গোলাগুলির পর ওই ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। পাড়া বা গ্রামের বেশিরভাগ লোক জঙ্গলে আশ্রয় নেন।
সিংগাফা মৌজার হেডম্যান (মৌজাপ্রধান) সিংমৈঅং মার্মা জানান, দুর্গম সীমান্ত এলাকায় হেঁটে যাতায়াত করতে হয়। মিয়ানমার থেকে সহজে বাংলাদেশে প্রবেশ করা যায় কোনো বাধা ছাড়াই। তবে এক জায়গা থেকে অন্য পাহাড় ডিঙিয়ে যাওয়া সহজসাধ্য নয়। সহজ উপায় হিসেবে আরাকান আর্মিরা এই ঘোড়াগুলো ব্যবহারের জন্য আনতে পারে।

বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মহসিন রেজা সমকালকে বলেন, আহত বিজিবি সদস্য নায়েক জাকিরের অবস্থা আশঙ্কামুক্ত। গত সোমবার বিজিবি মহাপরিচালক আজিজ আহমেদ বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলার খানসামা এলাকায় স্থাপিত হওয়া নতুন সেক্টর সদর দপ্তরের ভবন নির্মাণের কাজ পরিদর্শনে যান। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, অরক্ষিত সীমান্ত দিয়ে অস্ত্র, মাদকের চোরাচালান, অবৈধ অনুপ্রবেশের ঘটনা ঘটছে। সীমান্ত অরক্ষিত থাকলে এসব বন্ধ করা যাবে না। সীমান্ত সুরক্ষিত করা গেলে সহজে এসব বন্ধ করা যাবে।
গত ১৭ জুন বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের নাফ নদীতে চোরাকারবারিদের নৌকায় তল্লাশির সময় বিজিবি সদস্যের ওপর গুলি চালায় বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি)। এতে বিজিবির জওয়ান বিপ্লব কুমার গুলিবিদ্ধ হন। নায়েক রাজ্জাককে ধরে নেয় বিজিপি। পরে কূটনৈতিক তৎপরতার মধ্য দিয়ে রাজ্জাককে ফেরত আনা হয়।

নৃপেন পোদ্দারজাতীয়
বান্দরবানের থানচি উপজেলার বড় মদক এলাকার দুর্গম পাহাড়ে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির সদস্যদের সঙ্গে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন 'আরাকান আর্মি'র গোলাগুলির পর সেখানে চিরুনি অভিযান চলছে। যৌথ এই অভিযানে অংশ নেন সেনা, বিমান ও বিজিবির সদস্যরা। বুধবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে বান্দরবানের বড় মদক, বলিপাড়া ও বাতংপাড়া এলাকায় টহলরত বিজিবি...