1440333334
কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাজধানীর হাজারীবাগ থানা ছাত্রলীগ সভাপতি আরজু মিয়া নিহতের ঘটনায় র‌্যাবের তিন কর্মকর্তাসহ চারজনের বিরুদ্ধে করা মামলাটি গ্রহণ করা হবে কি না এ বিষয়ে আগামী মঙ্গলবার আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছে আদালত। রবিবার বিকালে ঢাকা মহানগর হাকিম শাহরিয়ার মাহমুদ আদনানের আদালত শুনানি শেষে এ দিন ধার্য করেন।

সকালে আরজু মিয়ার বড় ভাই মাসুদ রানা মামলাটি দায়ের করেন। মাসুদ রানা বলেন, তাঁর ভাই আরজু মিয়াকে অপহরণ ও হত্যার অভিযোগে তিনি রবিবার সকালে আদালতে নালিশি মামলা করেছেন। আসামিরা হলেন- র‌্যাব-২ এর পরিচালক মাসুদ রানা, ডিএডি শাহিদুর রহমান, পুলিশের পরিদর্শক ওয়াহিদ ও র‌্যাবের সোর্স রতন। মামলায় অপহরণের পর বন্দুকযুদ্ধের নামে হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে। ছাত্রলীগের হাজারীবাগ থানা শাখার সভাপতি আরজু মিয়াকে অপহরণের পর গুলি করে হত্যার অভিযোগে র‌্যাব ও পুলিশের তিন কর্মকর্তাসহ চারজনের বিরুদ্ধে একটি নালিশি মামলা হয়। সকালে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে মামলাটি করেন নিহতের ভাই মাসুদ রানা। হাকিম শাহরিয়ার মাহমুদ আদনান বাদীর জবানবন্দি নিয়েছেন। তবে আদেশ আগামী মঙ্গলবার দেয়া হবে বলে জানিয়েছে আদালত।

মামলার আরজিতে অভিযোগ করা হয়, ১৭ আগস্ট হাজারীবাগ থানা ছাত্রলীগের সভাপতি আরজু মিয়াকে অপহরণ করে নিয়ে যায় র‌্যাব। তাঁকে হত্যা করে সিকদার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পেছনে লাশ ফেলে রাখা হয়। র‌্যাব ১৯ আগস্ট সংবাদ সম্মেলনে বলে, ‘আরজু বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন।’ অভিযোগে আরো বলা হয়, ‘১৭ ও ১৮ আগস্ট ঘটনাস্থলে কোনো বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেনি। আসামিরা পরিকল্পিতভাবে আরজুকে তুলে নিয়ে যায় এবং হত্যা করে লাশ ফেলে রাখে।’

বাদীর আইনজীবী আজিম উদ্দিন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, ‘মহানগর হাকিম শাহরিয়ার মোহাম্মদ আদনান আবেদন শুনেছেন। মঙ্গলবার আদেশের অপেক্ষায় রয়েছে।’

বাহাদুর বেপারীপ্রথম পাতা
কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রাজধানীর হাজারীবাগ থানা ছাত্রলীগ সভাপতি আরজু মিয়া নিহতের ঘটনায় র‌্যাবের তিন কর্মকর্তাসহ চারজনের বিরুদ্ধে করা মামলাটি গ্রহণ করা হবে কি না এ বিষয়ে আগামী মঙ্গলবার আদেশের জন্য দিন ধার্য করেছে আদালত। রবিবার বিকালে ঢাকা মহানগর হাকিম শাহরিয়ার মাহমুদ আদনানের আদালত শুনানি শেষে এ দিন ধার্য করেন। ...