1_109715
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র সৌরভ মিয়ার (৮) দু’পায়ে গুলি করে আহত করার পর থেকে আত্মগোপনে রয়েছেন গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) মো. মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন।

কয়েক দফায় পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালিয়েও মো. মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের কোনো খোঁজ খবর পাচ্ছে না। এমনকি তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও বন্ধ রয়েছে।

এ ছাড়া এ ঘটনার পর এমপি লিটনের স্ত্রী, ভাই ও তার পক্ষের রাজনৈতিক নেতারাও ঘটনা সম্পর্কে বা লিটনের অবস্থান সম্পর্কে মুখ খুলছেন না। জেলার প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার কর্মীরা একাধিবার চেষ্টা করেও লিটনের বাড়ির কারও বক্তব্য নিতে পারেননি।

এ ঘটনার পর থেকে এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটককে গ্রেফতার ও বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে এলাকাবাসী।

সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) জিন্নাত আলী ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, এমপি লিটনের বাড়ি বামনডাঙ্গায় র‌্যাব ও পুলিশ কয়েকবার যায়। কিন্তু তার বাড়িতে কাউকে পাওয়া যায়নি।

তিনি বলেন, ”শুনেছি এমপি সাহেব ঢাকায় গেছেন। মোবাইল বন্ধ থাকায় যোগাযোগ সম্ভব হচ্ছে না। তবে শিশু গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

সুন্দরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবদুল হাই মিলটন ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, ঘটনার পর থেকে এমপি ও তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে কাউকে পাওয়া যাচ্ছে না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা বাজারের সব দোকানপাট রাত ১০টার দিকে বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বিষ্ণুরাম রায় ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে জানান, ঈদের দু’দিন আগে ২৩ সেপ্টেম্বর ভোরে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বরে গিয়ে ওয়ার্ডবয় মাহমুদুল ইসলাম ওরফে মামুনুর রশিদকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়েন এমপি। মামুনুর রশিদ দৌড়ে পালিয়ে যাওয়ায় গুলি লাগেনি। এ সময় হাসপাতালে থাকা রোগী, ডাক্তার ও কর্মচারীরা আতঙ্কিত হয়ে ছোটাছুটি করতে থাকেন।

তিনি আরও জানান, গত শীত মৌসুমে বামনডাঙ্গা আবদুল হক ডিগ্রি কলেজ মাঠে যাত্রায় অশ্লীল নৃত্যের মাধ্যমে এলাকায় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করলে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা তা বন্ধ করতে যান। এ সময় এমপি লিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেজবাহুল হোসেন ও শরীফ আহম্মেদকে লাঞ্ছিত করেন। এ নিয়ে প্রশাসনের সঙ্গে দীর্ঘদিন তার টানাপোড়েন চলে।

প্রসঙ্গত, মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন শুক্রবার ভোরে গাড়িতে করে বামনডাঙ্গা থেকে সুন্দরগঞ্জ আসছিলেন। এ সময় তিনি বামনডাঙ্গা-সুন্দরগঞ্জের ব্র্যাক মোড়ের পশ্চিম পাশের গোপালচরণ এলাকায় পৌঁছলে এক ব্যক্তিকে তার গাড়িতে উঠতে বলেন। কিন্তু ওই ব্যক্তি ভয়ে গাড়িতে না উঠে দৌঁড় দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে লিটন তাকে লক্ষ্য করে পরপর দুই রাউন্ড গুলি ছোড়েন। এ সময় রাস্তায় থাকা শিশু সৌরভের দুই পায়ে গুলি লাগে। সৌরভ বর্তমানে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ২৮ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন। সৌরভ সুন্দরগঞ্জ উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের গোপালচরণ গ্রামের সাজু মিয়ার ছেলে।

http://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/10/1_109715.jpghttp://crimereporter24.com/wp-content/uploads/2015/10/1_109715-300x300.jpgঅর্ণব ভট্টশেষের পাতা
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র সৌরভ মিয়ার (৮) দু'পায়ে গুলি করে আহত করার পর থেকে আত্মগোপনে রয়েছেন গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) মো. মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন। কয়েক দফায় পুলিশ, র‌্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালিয়েও মো. মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের কোনো খোঁজ খবর পাচ্ছে না। এমনকি তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনও...