bnp-111-290x218
বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপির সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যথারীতি ফাঁকা দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়।

এক বছর আগেও জাতীয় কোনো কর্মসূচি দেয়া হলে আগের দিন থেকে শুরু করে টানা কয়েকদিন ধরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় গমগম করতো।

কর্মসূচির দিন অন্তত একাধিকবার সংবাদ সম্মেলন করে দেশবাসীকে দলের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে অবহিত করা হতো।

কিন্তু আজ রবিবার সারাদেশে বিএনপির নেতৃত্বে ২০দলীয় জোটের বিক্ষোভ কর্মসিতে নেতাকর্মীদের দেখা নেই। কার্যালয় রীতিমতো খাঁ খাঁ করছে।

অন্যান্য দিনের মতো আজও বিএনপির নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নীচে পুলিশ সদস্যদের দেখা গেছে।

সেখানকার দায়িত্বে থাকা পুলিশের একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, “প্রতিদিন যেভাবে আজও সেইভাবে দায়িত্ব পালন করতেছি। সকাল থেকে এখানে কোনো নেতাকর্মী বা মিছিল দেখিনি।”

কার‌্যালয়ের ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, কর্মকর্তা ও কর্মচারি ছাড়া কেউ নেই।তারাও সবাই দুপুরে খারার খাচ্ছেন।

তৃতীয় তলায় গিয়ে পাওয়া গেলো সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু এবং নির্বাহী কমিটির সদস্য বেলাল হোসাইনকে।

তিনি বলেন, “আজকে সারাদেশে কর্মসূচি হচ্ছে। অনেকে টেলিফোন করে খবর দিচ্ছে। তবে আলাদা করে এসব তথ্য পরে গণমাধ্যমে দেয়ার আপাতত কোনো নির্দেশনা নেই ।”

হীরা পান্নাশেষের পাতা
বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপির সারাদেশে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যথারীতি ফাঁকা দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়। এক বছর আগেও জাতীয় কোনো কর্মসূচি দেয়া হলে আগের দিন থেকে শুরু করে টানা কয়েকদিন ধরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় গমগম করতো। কর্মসূচির দিন অন্তত একাধিকবার সংবাদ সম্মেলন করে দেশবাসীকে দলের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে অবহিত করা হতো। কিন্তু আজ রবিবার...