app1-290x160
আপনার অজান্তে চোখের আড়ালে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন সংস্থাগুলো প্রতিনিয়ত তাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করে যাচ্ছে বলে প্রকাশিত এক রিপোর্টে উঠে এসেছে। আর বিষয়টিকে ‘মোবাইল ডিভাইস হাইজ্যাকিং’ নামে আখ্যা দিচ্ছেন প্রযুক্তিবিদরা।

রিপোর্টে বলা হচ্ছে, প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ‍অ্যাপ বিজ্ঞাপন প্রচার করে যাচ্ছে, যা ব্যবহারকারীর চোখের আড়ালেই থাকছে।

ব্যবহারকারীর ডিভাইস স্লোসহ বারবার হ্যাং হওয়ার পেছনে এ ধরনের ‘প্রতারণাকে’ দায়ী করা হয়েছে রিপোর্টে। এছাড়া এতে মোবাইল ডাটাও খরচ হচ্ছে দ্রুত।

অনলাইন বিজ্ঞাপন প্রতারণা নিয়ে কাজ করা ‘ফরেনসিক’ (Forensiq) নামে একটি প্রতিষ্ঠান এ রকম পাঁচ হাজার অ্যাপের কথা জানিয়েছে। আইফোন ও ‍অ্যান্ড্রয়েড উভয় ব্যবহারকারীই প্রতারণার শিকার হচ্ছেন বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

দশদিন ধরে চালানো এক জরিপের ফলাফলের বিষয়ে ফরেনসিক বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে সব ধরনের ডিভাইসে অন্তত এক শতাংশ অ্যাপ এ কাজটি করে যাচ্ছে। আর এশিয়া, ইউরোপে এ হার ২-৩ শতাংশ।

এদিকে, এ ধরনের প্রতারণায় বিজ্ঞাপন সংস্থাগুলো প্রতিবছর ৮৫ কোটি (৮৫০ মিলিয়ন) ডলার ব্যয় করছে বলে রিপোর্টে বলা হয়েছে।

অনলাইন বিজ্ঞাপন যে ধরনের প্রতারণা করে এটি তার ব্যতিক্রম বলে উল্লেখ করেছেন ফরেনসিক’র প্রধান নির্বাহী ডেভিড সেনড্রফ।

তিনি বলেন, ব্যবহারকারী হ্যান্ডসেটের পর্দায় একটি বিজ্ঞাপন দেখলেও আড়ালে থাকে আরো ৫-১০টি বিজ্ঞাপন। অনেক সময় এমনও হয়, ব্যবহারকারী যখন অন্য কোনো পেজে যেতে চাইছেন অ্যাপটি তখনও বিজ্ঞাপন লোড করছে।

সম্প্রতি বেশ কিছু অ্যাপ বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে উচ্চ মূল্য হাঁকার পর বিষয়টি নজরে আসে ফরেনসিকের। এরপর প্রতিষ্ঠানটির জারিপের ফলাফলে এ বিষয়ে বিস্তারিত উঠে আসে।

তকে ফরেনসিক নির্দিষ্ট কোনো অ্যাপের কথা না বললেও ‘ব্লুমবার্গ বিজনেস’র এক জরিপে মোবাইল গেম সংক্রান্ত অ্যাপের কথা বলা হয়েছে।

সুরুজ বাঙালীবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
আপনার অজান্তে চোখের আড়ালে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে বিজ্ঞাপন সংস্থাগুলো প্রতিনিয়ত তাদের বিজ্ঞাপন প্রচার করে যাচ্ছে বলে প্রকাশিত এক রিপোর্টে উঠে এসেছে। আর বিষয়টিকে ‘মোবাইল ডিভাইস হাইজ্যাকিং’ নামে আখ্যা দিচ্ছেন প্রযুক্তিবিদরা। রিপোর্টে বলা হচ্ছে, প্রতিনিয়ত হাজার হাজার ‍অ্যাপ বিজ্ঞাপন প্রচার করে যাচ্ছে, যা ব্যবহারকারীর চোখের আড়ালেই থাকছে। ব্যবহারকারীর ডিভাইস স্লোসহ বারবার হ্যাং...