91089_tarana
অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ীদের কোন ছাড় দেয়া হবে না। এটি বন্ধে যা করণীয় তার সব কিছুই সরকারের পক্ষ থেকে আমরা করবো। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি ক্র্যাশ প্রোগ্রাম আমরা হাতে নিয়েছি। আশা করছি সহসাই এর সুফল পাওয়া যাবে। মোট কথা অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার মূলোৎপাটন করতে চাই। গতকাল মুঠোফোনে ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে দেয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী বেগম তারানা হালিম। অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সঙ্গে সরকারি প্রতিষ্ঠান জড়িত। এ বিষয়টি কি আপনার জানা আছে?- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি কিছুটা সময় থেমে থেকে বলেন, আমার কথা একটাই, অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা পুরোপুরি বন্ধ করব। মোট কথা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনব। এখানে কাউকে কোন আলাদা খাতির করবো না। সরকারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিটিসিএল বা টেলিটক যে বা যারাই অবৈধ ভিওআইপি করুক, কাউকে কোন রকম ছাড় দেয়া হবে না। ভিওআইপি নিয়ে নিজের মন্ত্রণালয় এবং সরকারের অবস্থান তুলে ধরতে গিয়ে তিনি বলেন, অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা বন্ধের বিষয়ে শিগগিরই বিটিসিএল এবং টেলিটকের সঙ্গে আমরা বসবো। কয়েক দিন আগে অভিযোগ পাওয়ার পর টেলিটকের কর্মকর্তাদের নিয়ে বসেছিলাম। তাদের কাছে এসব বিষয়ে জানতে চেয়েছি। কিন্তু কোন জবাব দেননি তারা। আমার স্পষ্ট কথা, টেলিটক বা বিটিসিএল বা অন্য যে কোন অপারেটরই হোক না কেন- এদের মধ্যে কারও বিরুদ্ধে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায় জড়িত থাকার প্রমাণ পেলে অবশ্যই আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। মনে রাখতে হবে, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। কোনভাবেই আমরা অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা করতে দেব না। এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এবং এর অধীন প্রতিষ্ঠানগুলোর কিছু করণীয় রয়েছে। তাদের সঙ্গেও আমরা আলাদাভাবে বসবো। তাদের সহযোগিতা নেব। বর্তমানে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা অনেক কমে গেছে দাবি করে তারানা হালিম বলেন, যতটুকু খোঁজ নিয়ে জেনেছি তাতে মনে হয়েছে এ অবৈধ ব্যবসা অনেক কমে গেছে। কিন্তু তাতে আমরা মোটেই সন্তুষ্ট নই। আমরা এটি একেবারে বন্ধ করতে চাই। এজন্য সার্বক্ষণিক মনিটরিংয়ের মাধ্যমে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ীদের চিহ্নিত করে অভিযান চালাব। দায়িত্ব নেয়ার পর অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কি কি ব্যবস্থা নিয়েছেন?- এমন প্রশ্নে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী বলেন, অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় এরই মধ্যে পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল করা হয়েছে। প্রতিটি কোম্পানির বিরুদ্ধে তিনটি করে মামলা চলছে। আনরেজিস্টার্ড সিম দিয়ে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আনরেজিস্টার্ড সিম দিয়ে একটি সংঘবদ্ধ চক্র অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা করছে। তাদের শনাক্তে আমরা কাজ করছি। কিন্তু তাদের শনাক্ত করতে বেশ সমস্যা হচ্ছে। অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা বন্ধ করতে গিয়ে কোন মহলের চাপের বিষয়টি মাথায় রেখেছেন কিনা এমন প্রশ্নে কিছুটাটা হেসে প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপরে কোন মহল নেই। তার আস্থা ও বিশ্বাসের মর্যাদা দিতে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আমার অ্যাকশন চলবেই চলবে। এ নিয়ে এক চুলও নড়বো না। আশা করছি, আগামীতে আমার কথার প্রমাণ পাবেন। এ বিষয়ে আপনাদের বেশি বেশি সহযোগিতা চাই।

নৃপেন পোদ্দারএক্সক্লুসিভ
অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসায়ীদের কোন ছাড় দেয়া হবে না। এটি বন্ধে যা করণীয় তার সব কিছুই সরকারের পক্ষ থেকে আমরা করবো। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি ক্র্যাশ প্রোগ্রাম আমরা হাতে নিয়েছি। আশা করছি সহসাই এর সুফল পাওয়া যাবে। মোট কথা অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার মূলোৎপাটন করতে চাই। গতকাল মুঠোফোনে ক্রাইম রিপোর্টার...