untitled-5_158963
বপ্ন তাহলে পূরণ হচ্ছে মাশরাফি বিন মর্তুজার। কোনো টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন নয়, কোনো ম্যাচের নায়কও নয়- মাশরাফির ছোটবেলার স্বপ্ন ছিল পুলিশ হয়ে মানুষের সেবা করবেন। বিশ্বকাপের পর পর সাতক্ষীরায় এক অনুষ্ঠানে গিয়ে সেই স্বপ্নের গল্প শোনান তিনি। বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়কের সেই স্বপ্নটাই এবার বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ। তাকে বাংলাদেশ পুলিশের অনারারি (সম্মানসূচক) সদস্য করার চিন্তাভাবনা শুরু হয়েছে। মাশরাফির গ্রামের বাড়ি নড়াইলে। তাই ‘নড়াইল এক্সপ্রেসখ্যাত’ মাশরাফিকে খুলনা রেঞ্জ থেকে পুলিশের সম্মানসূচক কোনো পদ দেওয়া হতে পারে। এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি এস এম মনিরুজ্জামান ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, ‘মাশরাফি বিন মর্তুজাকে পুলিশের সম্মানসূচক সদস্য করার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা চলছে। এ বিষয়টি নিয়ে কাজও শুরু হয়েছে।’ পুলিশের পক্ষ থেকে মাশরাফির সঙ্গে যোগাযোগও করা হয়। জানতে চাওয়া হয়, সত্যিই তিনি পুলিশের সম্মানসূচক কোনো পদ গ্রহণ করবেন কি-না। উৎফুল্ল মাশরাফি তাদের জানিয়ে দেন, ‘অবশ্যই।’

লাল-সবুজের জার্সি গায়ে জড়িয়ে যেমন দলকে নেতৃত্ব দেন মাশরাফি, এবার হয়তো পুলিশের পোশাকেও দায়িত্বশীল এক মাশরাফিকে দেখা যাবে। এমন তো নতুন নয়, ভারতেও হয়েছে এমন। ভারতের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির ছোটবেলার স্বপ্ন ছিল, সেনাবাহিনীর সদস্য হবেন। তবে তিনি হলেন ভারতের ক্রিকেটার। শুধু কি ক্রিকেটার, দেশটির অন্যতম সফল ক্রিকেট অধিনায়ক। তবে ক্রিকেটার হলেও ধোনির ছেলেবেলার স্বপ্ন অপূর্ণ থাকেনি। ভারতীয় সেনাবাহিনী তাকে সম্মানসূচক কর্নেল পদে ভূষিত করেছে।

গত বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পর সাতক্ষীরায় পুলিশের পক্ষ থেকে ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেখানে মাশরাফি তার বক্তব্যে বলেন, ছোটবেলায় তার স্বপ্ন ছিল পুলিশ হবেন। পুলিশের কাজটি অত্যন্ত চ্যালেঞ্জের। এর পরই মাশরাফির ছেলেবেলার স্বপ্নের কথা পুলিশের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের কর্মকর্তারা জানতে পারেন। এরপর তাকে এই বাহিনীতে নেওয়ার চিন্তাভাবনা শুরু হয়। তাকে পুলিশের কোন পদমর্যাদার কর্মকর্তা করা হবে, তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

পুলিশের একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা ক্রাইম রিপোর্টার ২৪.কমকে বলেন, মাশরাফির মতো একজন বরেণ্য ক্রিকেটারকে পুলিশ বাহিনীতে সম্মানসূচকভাবে অন্তর্ভুক্ত করা হলে এই বাহিনী গৌরবান্বিত হবে। পুলিশের প্রতি সাধারণ মানুষের চিন্তাভাবনার ক্ষেত্রে আরও ইতিবাচক পরিবর্তন হবে। একই সঙ্গে মাশরাফির ছোটবেলার স্বপ্নও পূর্ণতা পাবে। বিশ্বের অনেক দেশের কৃতী খেলোয়াড়দের স্ব-স্ব দেশের বিভিন্ন বাহিনীতে সম্মানসূচক পদ দেওয়ার রীতি প্রচলিত আছে।

শুভ সমরাটজাতীয়
বপ্ন তাহলে পূরণ হচ্ছে মাশরাফি বিন মর্তুজার। কোনো টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন নয়, কোনো ম্যাচের নায়কও নয়- মাশরাফির ছোটবেলার স্বপ্ন ছিল পুলিশ হয়ে মানুষের সেবা করবেন। বিশ্বকাপের পর পর সাতক্ষীরায় এক অনুষ্ঠানে গিয়ে সেই স্বপ্নের গল্প শোনান তিনি। বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়কের সেই স্বপ্নটাই এবার বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ পুলিশ।...